Wednesday, March 4, 2020

বিয়ে ও বিচ্ছেদ নিয়ে যতসব অদ্ভুত আইন।

বিয়ে ও বিচ্ছেদ নিয়ে যতসব অদ্ভুত আইন।

বিয়ে ও বিচ্ছেদ নিয়ে সারা পৃথিবী জুড়ে রয়েছে নানা বিচিত্র নিয়মকানুন। অনেকেরই হয়তো জানা নেই সেসব নিয়ম-কানুন ও আইনের কথা। চলুন আজকে জেনে নেয়া যাক বিয়ে ও বিচ্ছেদ নিয়ে যতসব অদ্ভুত নিয়ম-কানুন ও আইনের কথা। 

১। মৃত মানুষকে বিয়ে করার অনুমতিঃ 

বিয়ে ও বিচ্ছেদ নিয়ে যতসব অদ্ভুত আইন2।

 ফ্রান্সে রয়েছে বিয়ে বিষয়ে একটি অদ্ভুত আইন। আইনটি হলো- রাষ্ট্রপতির অনুমতি সাপেক্ষে মৃত মানুষকে আয়োজন করে বিয়ে করা যাবে। তবে রাষ্ট্রপতি থেকে অনুমতি নিতে প্রয়োজন পড়বে কিছু প্রমাণাদির।
মৃত মানুষটি জীবদ্দশায় ঐ পুরুষ বা ঐ নারীকে ভালোবাসত কিনা বা তাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল কিনা, এসব তথ্যাদি পেশ করতে হয় রাষ্ট্রপতির কাছে।

২। এক বছরের খোরপোষ দিলেই দিতে পারবেন ডিভোর্সঃ 

আমেরিকার টেনেসি প্রদেশে বিবাহ-বিচ্ছেদের জন্য রয়েছে খোরপোষ বিষয়ক একটি আইন। আইনটি হলো- স্ত্রীর এক বছর চলে যাবে এমন পরিমাণ খাবারের জোগান দিতে পারলে একজন স্বামী যে কোনো মুহূর্তে আর কোনো কারণ না দেখিয়েই স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটাতে পারেন।

খাবারের তালিকায় রয়েছে- শুকনো শস্যদানা, শুকনো ফলমূল এবং মাংস। আর পরিধানের জন্য রেশমি বস্ত্র এবং উল।

৩। স্ত্রীর জন্মদিন ভুলে গেলে শাস্তিঃ 

ছোট্ট দ্বীপরাষ্ট্র ওশেনিয়ার সামোয়া। সেখানে রয়েছে বিয়ে বিষয়ক অদ্ভুত এক আইন। জন্মদিনকে বেশ গুরুত্ব দিয়ে থাকে দেশটি।সেখানে কোনো স্বামী যদি তার স্ত্রীর জন্মদিন ভুলে যায় ও সময়মতো শুভেচ্ছা না জানায়, তা হলে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে সেই স্ত্রী তার ভুলোমনা স্বামীকে ডিভোর্স দেয়ার অধিকার পেয়ে যান। কিন্তু আইনটি স্ত্রীর বেলায় প্রযোজ্য নয়।

৪। রোববার স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করলেই আইনি ব্যবস্থাঃ  

যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডোয় রয়েছে একটি আইন। রোববারে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করতে একেবারেই নিষেধ। অন্যদিন গুলোতে যত খুশি ঝগড়া করুক সমস্যা নেই।রোববার স্ত্রীর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করলেই বিপদ। শুধু বিচ্ছেদই নয় স্বামীকে কারাগারেও পাঠাতে পারেন স্ত্রী।

৫। বিয়ের পূর্বে ঘোষণা দেওয়া বাধ্যতামূলকঃ 

ইচ্ছেমতো দিনে বিয়ে করা যায়না মোনাকোয়। দেশটির নিয়মানুযায়ী, দুটি রোববারসহ মোট দশ দিন হাতে রেখে বিয়ের ঘোষণা দিতে হবে। তারপরেই বিয়ে করতে পারবেন হবু স্বামী-স্ত্রী। তা না করলে সে বিয়ে বৈধতা দেওয়া হয় না সেখানে।

৬। সন্তান ধারণে বিধিনিষেধঃ

যুক্তরাষ্ট্রের ২৬ প্রদেশে আপন চাচাতো ভাইবোনদের মধ্যে বিয়ে নিয়ে রয়েছে একটি আইন। নিকটাত্মীয় বা রক্তের সম্পর্কের মধ্য বিয়ে হলে সন্তান হতে পারে প্রতিবন্ধী বা শারীরিকভাবে অপরিপক্ব।এমন বিয়েতে নিরুৎসাহিত করলেও বাধা দেয় না প্রশাসন। তারা বিয়ে করতে পারেন কিন্তু সন্তান নেয়া যাবে না। পরবর্তী প্রজন্ম যেন জিনগত ত্রুটি ও শারীরিক সমস্যা নিয়ে না জন্মায় সে ধারণা থেকেই সন্তান ধারণের জন্য বিধিনিষেধের এমন অদ্ভুত আইন রয়েছে দেশটির সেসব প্রদেশে।

আরও বিস্তারিত জানতে নিচের ভিডিও টি দেখুনঃ 

Saturday, February 22, 2020

জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর।

জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর।

জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর।

হ্যালো বন্ধুরা আমি আজকে আলোচনা করবো জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর। আজকের এই আলোচনায় উঠে আসবে জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহরের কথা। আপনারা জনসংখ্যাকে আয়তনের সাথে গুলিয়ে ফেলবেন না। কারণ কোন কোন জেলার আয়তন বেশি হতে পারে কিন্তু জনসংখ্যার দিক দিয়ে তা কম। কাজেই আজকের টপিক হচ্ছে জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষে থাকা ১০ টি শহরের কথা। এই টপিকটি গুগল, ওয়িকিপিডিয়া,বাংলাদেশ গভমেন্ট সাইট ও বিভিন্ন সোর্স থেকে সম্পূর্ণ নির্ভুলভাবে উপাস্থাপন করা হয়েছে।  

জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর। 

  1. ঢাকা জেলা
  2. চট্টগ্রাম জেলা
  3. কুমিল্লা জেলা
  4. ময়মনসিংহ জেলা
  5. সিলেট জেলা
  6. নারায়ণগঞ্জ জেলা
  7. রংপুর জেলা
  8. রাজশাহী জেলা
  9. বরিশাল জেলা
  10. খুলনা জেলা

১। ঢাকা জেলাঃ 

ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ার রাষ্ট্র বাংলাদেশের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। প্রশাসনিকভাবে এটি দেশটির ঢাকা বিভাগের প্রধান শহর। ভৌগোলিকভাবে এটি বাংলাদেশের মধ্যভাগে বুড়িগঙ্গা নদীর উত্তর তীরে একটি সমতল এলাকাতে অবস্থিত। ঢাকা একটি অতিমহানগরী বা মেগাসিটি নামে পরিচিত। ঢাকা মহানগরী ১৬৮৩.২৭ বর্গকিলোমিটার আয়তনের জনসংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৫০ লক্ষ। জনসংখ্যার বিচারে এটি দক্ষিণ এশিয়ার চতুর্থ বৃহত্তম শহর (দিল্লি, করাচি ও মুম্বইয়ের পরেই) এবং সমগ্র বিশ্বের নবম বৃহত্তম শহর। জনঘনত্বের বিচারে ঢাকা বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ মহানগরী।

২। চট্টগ্রাম জেলাঃ  

চট্টগ্রাম ঐতিহাসিক নাম পোর্টো গ্র্যান্ডে এবং ইসলামাবাদ।  চট্টগ্রাম বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। বন্দরনগরী নামে পরিচিত শহর, দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের চট্টগ্রাম জেলায় অবস্থিত। বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে পরিচিত পাহাড়, সমুদ্রে এবং উপত্যকায় ঘেরা চট্টগ্রাম শহর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্যে প্রাচ্যের রাণী হিসেবে বিখ্যাত। ঢাকার পর বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ শহর হচ্ছে চট্টগ্রাম। এখানে দেশের সর্ববৃহৎ বন্দর ছাড়াও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এটি এশিয়ায় ৭ম এবং বিশ্বের ১০ম দ্রুততম ক্রমবর্ধমান শহর। ৫২৮৩ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে  ৭৯ লক্ষ ১৩ হাজার ৩ শত ৬৫ জনের বসবাস রয়েছে। 

৩।  কুমিল্লা জেলাঃ 

কুমিল্লা বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্ব প্রান্তে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থিত একটি মহানগর। এটি ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনা এর পর বাংলাদেশের চতুর্থ বৃহত্তম শহর।এটির মেট্রোপলিটন এলাকার আয়তন ৩০৮৭.৩৩ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ৫৬ লক্ষ ০২ হাজার ৬ শত ২৫ জন। এটি চট্টগ্রাম বিভাগে অবস্থিত কুমিল্লা জেলার প্রশাসনিক কেন্দ্রবিন্দু।

৪। ময়মনসিংহ জেলাঃ  

ময়মনসিংহ বাংলাদেশের সপ্তম বৃহত্তম শহর। বাংলাদেশের প্রধান শহরগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। এটি ময়মনসিংহ জেলার প্রায় কেন্দ্রভাগে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে অবস্থিত। নদীর তীর জুড়ে থাকা শহর-রক্ষাকারী বাঁধের বিস্তীর্ণ এলাকা নিয়ে নিয়ে গড়ে উঠেছে ময়মনসিংহ পার্ক যা শহরবাসীর মূল বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত। বর্তমানে পার্কের অনেক দৃশ্যমান উন্নয়ন করা হয়েছে। ৪৩৬৩.৪৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে  ৫৩ লক্ষ ৩০ হাজার ২ শত ৭২ জনের বসবাস রয়েছে।


৫। সিলেট জেলাঃ

সিলেট উত্তর-পূর্ব বাংলাদেশের একটি প্রধান শহর, একই সাথে এই শহরটি সিলেট বিভাগের বিভাগীয় শহর। এটি সিলেট জেলার অন্তর্গত। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এলাকাই মূলত সিলেট শহর হিসেবে পরিচিত। সিলেট ২০০৯ সালের মার্চ মাসে একটি মেট্রোপলিটন শহরের মর্যাদা লাভ করে। ৩৪৫২ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে ৩৫ লক্ষ ৬৭ হাজার ১ শত ৩৮ জনের বসবাস রয়েছে।

০৬। নারায়ণগঞ্জ জেলাঃ   

নারায়ণগঞ্জ জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ঢাকা বিভাগের একটি জেলা। নারায়ণগঞ্জ শহরে এ জেলার প্রশাসনিক সদরদপ্তর অবস্থিত। অত্যন্ত প্রাচীন এবং প্রসিদ্ধ সোনারগাঁও এ জেলার অন্তর্গত। নারায়ণগঞ্জ সোনালী আশঁ পাটের জন্য প্রাচ্যের ড্যান্ডি নামে পরিচিত। শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দর একটি বিখ্যাত নদী বন্দর। ৬৮৩.১৪ বর্গকিলোমিটার আয়তনের ২০১৫ সালের তথ্য অনুযায়ী জেলার জনসংখ্যা হল ৩০ লক্ষ ৭৪ হাজার ০৭৭ জন মানুষের বসবাস রয়েছে।

৭। রংপুর জেলাঃ   

রংপুর বাংলাদেশের রংপুর বিভাগের অন্যতম প্রধান শহর এবং ১৮৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের প্রাচীনতম পৌর কর্পোরেশনের একটি। রংপুর শহর ১৭৬৯ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিভাগীয় সদর দপ্তর হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। ১৮৯০ সালে তৎকালীন পৌর কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ডিমলার জমিদার বাড়ির রাজা জানকীবল্লভ সেন রংপুর শহরে জলাবদ্ধতা নিরসনে তার মা চৌধুরানী শ্যামাসুন্দরী দেবী'র নামে যে খালটি পুনঃখনন করেন তাই আজকের শ্যামাসুন্দরী খাল নামে পরিচিত এবং তার দানকৃত বাগান বাড়ির জমিতে ১৮৯২ খ্রিষ্টাব্দে আজকের পৌরসভা ভবনটি গড়ে ওঠে। ২৪০০.৫৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে ২৯ লক্ষ ৯৬ হাজার ৩ শত ৩৬ জন মানুষের বসবাস রয়েছে।


৮। রাজশাহী জেলাঃ 

রাজশাহী বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐত্যিহবাহী মেট্রোপলিটন শহর। এটি উত্তরবঙ্গের সবথেকে বড় শহর। রাজশাহী শহর পদ্মা নদীর তীরে অবস্থিত। যা রাজশাহী বিভাগের বিভাগীয় শহর। রাজশাহী শহরের নিকটে প্রাচীন বাংলার বেশ কয়েকটি রাজধানী শহর অবস্থিত। এদের মাঝে লক্ষণৌতি বা লক্ষনাবতি, মহাস্থানগড় ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। রাজশাহী তার আকর্ষণীয় রেশমীবস্ত্র, আম, লিচু এবং মিষ্টান্নসামগ্রীর জন্য প্রসিদ্ধ। রাজশাহী বাংলাদেশের শহরগুলির মধ্যে সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন এবং সবুজ।  ২৪০৭.০১ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে ২৩ লক্ষ ৭৭ হাজার ৩ শত ১৪ জনের বসবাস রয়েছে। 

৯। বরিশাল জেলাঃ 

বরিশাল বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি শহর। প্রাচ্যের ভেনিস নামে পরিচিত এ শহরটি বরিশাল জেলায় অবস্থিত ও এটি বরিশাল বিভাগের সদর দপ্তর। এটি বাংলাদেশ-এর একটি অন্যতম সুন্দর শহর। কীর্তনখোলা নদীর তীরে অবস্থিত এই শহরের পুরাতন নাম চন্দ্রদ্বীপ। দেশের খাদ্যশস্য উৎপাদনের একটি মূল উৎস এই বৃহত্তর বরিশাল। বরিশালে একটি নদীবন্দর রয়েছে যেটি দেশের অন্যতম প্রাচীন, দ্বিতীয় বৃহত্তম ও গুরুত্বপূর্ণ একটি নদীবন্দর। ২৭৯১ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে  ২৩ লক্ষ ২৪ হাজার ৩ শত ১০ জনের বসবাস রয়েছে।

১০। খুলনা জেলাঃ

খুলনা ঢাকা এবং চট্টগ্রামের পরে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম শহর। খুলনা জেলা এবং খুলনা বিভাগের সদর দপ্তর এই খুলনা শহরে অবস্থিত। খুলনা বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে রূপসা এবং ভৈরব নদীর তীরে অবস্থিত। বাংলাদেশের প্রাচীনতম নদী বন্দরগুলোর মধ্যে খুলনা অন্যতম। খুলনা বাংলাদেশের অন্যতম শিল্প ও বাণিজ্যিক এলাকা হওয়ায় খুলনাকে শিল্প নগরী হিসেবে ডাকা হয়। খুলনা শহর থেকে ৪৮ কি.মি. দূরে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর মংলা সমুদ্র বন্দর অবস্থিত। পৃথিবী বিখ্যাত উপকূলীয় বন সুন্দরবন খুলনা জেলার দক্ষিণাংশে অবস্থিত। খুলনাকে সুন্দরবনের প্রবেশদ্বার বলা হয়। ৪৩৯৪.৪৫ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে ২৩  লক্ষ ১৮ হাজার ৫ শত ২৭ জন মানুষের বসবাস রয়েছে।

১১। গাজীপুর জেলাঃ

অতিরিক্ত হিসেবে গাজীপুর জেলাকে না উল্লেখ করলেই নয়। তাই বোনাস হিসেবে গাজীপুর জেলা নিয়ে আলোচনা করতে বাধ্য হলাম। গাজীপুর জেলা একটি পুরাতন শহর। এটি ঢাকার সন্নিকটে অবস্থিত। অনেকগুলি ভারী এবং মাঝারি শিল্প এলাকা নিয়ে এই শহর গড়ে উঠেছে। টঙ্গীর অবস্থান এই শহরের মধ্যে। এছাড়াও এখানে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি রয়েছে। ১৭৭০.৫৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই শহরে ২১ লক্ষ ৪৩ হাজার ৪ শত ১৩ জনের বসবাস রয়েছে।

নিচের ভিডিও টি দেখুন আশা করি ভাল লাগবে। জনসংখ্যায় বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ শহর। 

Thursday, February 20, 2020

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

আপনি কি একটি চাকরি খুঁজছেন? আপনি কি জানেন বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানির নাম কি? আমি আজকে এই ভিডিও তে বাংলাদেশের র‍্যাঙ্কিংকের ভিত্তিতে  সেরা ১০ টি কোম্পানির নাম তুলে ধরবো। এই সকল কোম্পানি গুলোতে চাকরি করা যেমন সম্মানের তেমনি  ভাল বেতনও রয়েছে। আমি পূর্বে এমন একটি ভিডিও করেছিলাম কিন্তু সেখানে প্রচুর পরিমাণে কমেন্ট আসছে। সেই ভিডিও এর কমেন্টে বেশ কিছু কোম্পানির নাম  সামনে চলে এসেছে। আপনারা সেই ভিডিও টি ডেসক্রিপশন বক্স থেকে দেখে নিবেন। তবে শতভাগ সঠিক ভাবে এই তালিকা করা সম্ভব নয়। কোম্পানির সুনাম, বাজারে পণ্যের মান, জনবল এর ভিত্তিতে এই তালিকাটি গুগল, ফেসবুক, লিঙ্কদিন ও বিভিন্ন সোর্স থেকে নিজস্ব গবেষনায় এই ভিডিও টি করা হয়েছে।  চলুন শুরু করা যাক।


বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

  1. বসুন্ধরা গ্রুপ
  2. যমুনা গ্রুপ
  3. আকিজ গ্রুপ
  4. বেক্সিমকো
  5. স্কয়ার
  6. আবুল খায়ের কোম্পানী
  7. এ সি আই
  8. নাভানা
  9. আর এফ এল কোম্পানী
  10. পারটেক্স

১। বসুন্ধরা গ্রুপঃ

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

বাংলাদেশের একটি অন্যতম বড় ও সেরা কোম্পানী হচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ। দেশ ও মানুষের জন্য এই স্লোগান নিয়ে ১৯৮৭ সালে যাত্রা শুরু করে । প্রথম পর্যায়ে যখন তারা সফল হতে শুরু করে তারপর থেকেই নতুন নতুন সেক্টরে তারা বিনোয়োগ করতে থাকে। বসুন্ধরা গ্রুপ যেসব বিভাগে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে তার সংক্ষিপ্ত তালিকা নিন্মে দেওয়া হল।

  • বসুন্ধরা সিটি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড
  • বসুন্ধরা পেপার মিলস্‌
  • বসুন্ধরা টিস্যু
  • বসুন্ধরা সিমেন্ট স্যাগ প্ল্যান্ট
  • মেঘনা সিমেন্ট
  • বসুন্ধরা স্টিল
  • বসুন্ধরা এলপি গ্যাস
  • বসুন্ধরা লজিস্টিক্‌স
  • বসুন্ধরা টেকনোলজিস
  • বিএনডিবিল সহ অনেক প্রতিষ্ঠান।
বসুন্ধরা গ্রুপের সর্বশেষ সংযোজন হচ্ছে “East West Media Group Ltd” যা ২০০৯ সালের প্রতিষ্ঠিত হয়। শুধু তাই নয় ২০১৬ সালে বসুন্ধরা গ্রুপের এই প্রতিষ্ঠানটি সর্বোচ্চ কর দেওয়ার জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক পুরস্কৃত হয়। এই East West Media Group Ltd এর অধীনে কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ইংলিশ কাগজ ডেইলী সান, অনলাইন পোর্টাল বাংলানিউজ২৪ ডট কম, নিউজ২৪ নামে এইচডি স্যাটেলাইট সংবাদ চ্যানেল রয়েছে। রেডিও ক্যাপিটাল নামে ঢাকাকেন্দ্রিক এফএম রেডিও স্টেশনও আছে তাদের।বসুন্ধরা গ্রুপে সব মিলিয়ে ২৫ হাজার অধিক মানুষ কর্মরত আছে। বাংলাদেশের সেরা কোম্পানী তালিকায় বসুন্ধরা গ্রুপ অন্যতম শীর্ষ নাম্বারে আছে।


২। যমুনা গ্রুপঃ

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

যমুনা গ্রুপ হচ্ছে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কোম্পানি গুলোর মধ্যে একটি। মো: নুরুল ইসলাম বাবুল ১৯৭৪ সালে যমুনা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। যমুনা গ্রুপের অন্যতম সেরা ব্যবসা ক্ষেএ বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ শপিং মল যমুনা ফিউচার পার্ক প্রায় ৪,১০০,০০ বর্গফুট আয়তনের যা কিনা দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ শপিং মল হিসাবে পরিচিত।যমুনা গ্রুপের অনেক উল্লেখযোগ্য কোম্পানির রয়েছে যেমন যুগান্তর পত্রিকা, যমুনা টেলিভিশন, যমুনা সিটি, নিউ উত্তরা মডেল টাউন, যমুনা ডিনিমস, শামীম কম্পোজিট, যমুনা ইলেকট্রনিক্স সহ গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠানের মালিক।


৩। আকিজ গ্রুপঃ

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

আজ থেকে প্রায় ৭৮ বছর আগে, ১৯৪০ সালে শেখ আকিজউদ্দিন প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশর অন্যতম সেরা কোম্পানি আকিজ গ্রুপ। আজ প্রায় ৩৫০০০ মানুষ আকিজ গ্রুপের সাথে কর্মরত। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ করদাতা হিসাবে এই প্রতিষ্ঠানের সুনাম আছে। আকিজ গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা শেখ আকিজউদ্দিনের জীবনী তরুন উদ্যোক্তাদের কাছে এক বিশাল অনুপ্রেরনা।

বিড়ি, সিমেন্ট, অটোমোটিভ ইন্ডাষ্ট্রিজ, গ্যাস কোম্পানি, গ্যাস স্টেশন, হোটেল, ম্যাচ ফ্যাক্টরি, জুট মিলস, জর্দা ফ্যাক্টরি, রাইস মিল, সিরামিক, সিকিউরিটিজ, গার্মেন্টস সহ নানা মুখী ব্যবসার মাধ্যে আজকে আকিজ গ্রুপ সেরা কোম্পানির একটি।


৪। বেক্সিমকোঃ 

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

১০০ অধিক দেশে রপ্তানি করা হয় বেক্সিমকোর নানা পণ্য। বাংলাদেশের সেরা কোম্পানীর মধ্যে বেক্সিমকো গ্রুপ অন্যতম। ১৯৭২ সালে সালমান এফ রহমান এবং তার ভাই মিলেই এই কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করেন।

শেয়ার বাজার বিনিয়োগ, ব্যাংকিং ও অর্থনীতি, ফার্মাসিউটিক্যাল,  গার্মেন্টস, গণমাধ্যম, আইটি সব বিভাগেই বেক্সিমকো রয়েছে। বেক্সিমকো মালিকানাধীন কিছু উল্লেখযোগ্য কোম্পানির নাম না লিখলেই নয়। তারা হচ্ছে বেক্সিমকো ফার্মা, শাইনপুকুর সিরামিকস, আইএফআইসি ব্যাংক, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন, নিউজ পেপার দ্য ইনডিপেনডেন্ট, ক্রিকেট ফ্রাঞ্চাইজ ঢাকা ডায়নামাইটস, ওয়েস্টিন হোটেলস বাংলাদেশ বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য।

জনবল নিয়োগেও তারা সেরা। বর্তমানে এই কোম্পানীতে ৭০০০০+ কর্মচারী নিয়োজিত আছে। তাই বলা যায় দেশের আর্থিক উন্নয়নে বেক্সিমকো অন্যতম সেরা কোম্পানী।


৫। স্কয়ারঃ

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

বাংলাদেশের ঔষধ শিল্পের যে কোম্পানীটি সকলের কাছে সেরা তা হল স্কয়ার কোম্পানী। ঔষধের গুনগত মান ভাল হওয়ায় সকলের কাছে এটি খুবই জনপ্রিয় একটি কোম্পানী। তাছাড়া শুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশে^র বহু দেশের মধ্যেও অনেক সুনাম অর্জন করেছে এই কোম্পানী। তাই বৈদেশিক আয়ের ক্ষেত্রে এই কোম্পানী সবার সেরা।

স্কয়ার গ্রুপের যেসকল উল্লেখযোদ্য প্রতিষ্ঠান আছে তা হলো স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল্‌স লিমিটেড, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, মাছরাঙ্গা টিভি, শেলটেক, স্কয়ার অ্যাগ্রো লিমিটেড, স্কয়ার টেক্সটাইল্‌স লিমিটেড, স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেড। তাদের উল্লেখযোদ্য আরেকটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি



৬। আবুল খায়ের কোম্পানীঃ 
 

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

আবুল খায়ের গ্রুপ বাংলাদেশের সেরা কোম্পানী গুলোর মধ্যে অন্যতম। এটিকে সবাই তামাক পন্য বিপনন কোম্পানী হিসেবে জানলেও এর পাশাপাশি তারা ভোগ্য পন্য, সিমেন্ট, ইস্পাত, সিরামিক, মার্বেল এবং শিপিং ব্যবসার কার্যক্রমও পরিচালনা করে থাকে।

৭। এ সি আইঃ 

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

বাংলাদেশের সেরা গ্রুপ অফ কোম্পানীর মধ্যে এসিআই অন্যতম। এটি ১৯৬৮ সালে পূর্ব পাকিস্তান আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়। জনাব এম আনিস উদ দৌলা এই কোম্পানীর মালিক। বর্তমানে এটি তিনটি বিভাগ নিয়ে কাজ করে। বিভাগ গুলো হলো ফার্মাসিউটিক্যালস, কনসিউমার ব্র্যান্ডস এবং কৃষি শিল্প সংক্রান্ত।


৮। নাভানাঃ  

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

পন্য এবং প্রকল্প বিপনন, নির্মাণ ও রিয়েল এস্টেট বিজনেস, আন্তর্জাতিক বানিজ্য এবং আরও বিপনন পন্যের উৎপাদন করে থাকে এই নাভানা গ্রুপ। বর্তমানে এই কোম্পানীর মালিক হচ্ছে শফিউল ইসলাম এবং তার অধিনেই এই গ্রুপের সকল কাজ সম্পন্ন হচ্ছে।

৯। আর এফ এল কোম্পানীঃ 

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

আরএফএল যার পূর্ণ নাম রংপুর ফাউন্ড্রি লিমিটেড। প্রাণ কোম্পানীর নাম মুখে আসলেই আমরা সবাই বুঝে থাকি বিভিন্ন ফলমূল আর শাকসবজি প্রক্রিয়াজাতকরণকে। এই কোম্পানী ১৯৮১ সালে যাত্রা শুরু করলেও পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে আরএফএল নামে প্লাস্টিক জাতীয় পণ্য তৈরীর কাজেও তাদের কার্যক্রম শুরু করে। আর এই আরএফএল কোম্পানীই দেশের সেরা প্লাস্টিক তৈরীর কারখানা হিসেবে সকলের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।


১০। পারটেক্সঃ  

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানি।

বাংলাদেশের বৃহৎ কোম্পানীর মধ্যে পারটেক্স কোম্পানী অন্যতম। এই গ্রুপের আওতাধীন পন্য গুলো হল বিভিন্ন ধরনের পানীয়, ইস্পাত, আসবাবপত্র, কৃষি ও প্লাস্টিক জাতীয় পণ্য ইত্যাদি। শিল্পপতি এম এ হাশেমের হাত ধরে ১৯৫৯ সালে এর যাত্রা শুরু হয়। ব্যবস্থাপনা এবং অধিনস্ত কোম্পানী গুলোর উন্নতির জন্য বর্তমানে এই কোম্পানী ২টি শাখায় বিভক্ত রয়েছে।

এই ১০টি কোম্পানি ছাড়াও বেশ কয়েকটি কোম্পানি সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তাদের নাম উল্লেখ না করলেই নয় সেগুলো হলো- এস আলম গ্রুপ, সিটি গ্রুপ, এ কে খান ও কোম্পানি, ব্রাক, ইস্পাহানি, বিএসআরএম বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য।

চাকুরীর জন্য বাংলাদেশের সেরা ১০ টি কোম্পানির ভিডিও টি দেখুনঃ



Tuesday, February 18, 2020

মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

একজন মা তার সন্তানের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সব ধরণের অসম্ভবকেই সম্ভব করে তুলতে পারেন। সন্তানের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সে সমস্ত কিছু ত্যাগ বিসর্জন দিতে সর্বদা প্রস্তুত থাকেন।। এমনই এক দৃষ্টান্ত দেখা গেলো তামিলনাড়ুর অন্তর্গত সেলিম শহরে। এক মা তার ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য বিক্রি করলেন নিজের মাথার চুল।



মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

আমি এতক্ষণ ধরে বলছিলাম তামিলনাড়ুর সেলিম শহরের বাসিন্দা প্রেমার কথা। আট মাস আগে আত্মহত্যা করে মৃত্যু হয় স্বামীর। স্বামী মারা যাওয়ার পর রোজগারের মত তেমন আর কেউ থাকে না। এতদিন ঋণ ধার করে কোন রকম চলছিল তার সংসার। আস্তে আস্তে ঋণের পরিমাণ বাড়তে থাকে। তার মোট  তিন সন্তান একজন ৫ বছরের এবং বাকি দুজন ২ ও ৩ বছরের হবে।

মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

শুক্রবার তার হাতে  কিছু কিনে খাওয়ার মত কোন টাকা পয়সা ছিল না। প্রচন্ড খিদের জালায় কাঁদছিল তার ছোট ছোট তিন শিশু। এই সময় কি করবে বুঝে উঠতে পারছিলনা অসহায় প্রেমা। ঐ সময় রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল এক চুল ক্রেতা। তার কাছে মাত্র ১৫০ টাকায় বিক্রি করে নিজের সমস্ত চুল। সেখান থেকে ১০০ টাকায় সন্তানদের খাওয়ায় আর ৫০ টাকায় কীটনাশক কিনে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। প্রেমার এক বোন আত্মহত্যা থেকে তাকে রক্ষা করে।



মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

চুল বিক্রির সময় জি বালা নামের এক ব্যক্তি দেখেন।  তারপর সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘটনাটি পোষ্ট করেন এবং সাহায্যের জন্য অনেকেই হাত বাড়িয়ে দেই। সাহায্যের পরিমাণ এসে দাড়ায় ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকা। বর্তমানে ইটভাটায় কাজ করেন প্রেমা।

মা তার মাথার চুল বিক্রি করে ক্ষুধার্ত সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিলেন।

একমাত্র মা তার সন্তানের জন্য এমন ত্যাগ তিতিক্ষা বিসর্জন দিতে পারেন। তাই আমাদের প্রত্যেকের উচিত মাকে ভালোবাসা। মাকে কোন রকম কস্ট না দেওয়া। বিশেষ করে বৃদ্ধ বয়সে মা বাবার পাশে থাকা প্রত্যেক সন্তানের নৈতিক কর্তব্য। যারা মা বাবাকে ভালবাসবে না তাদের ইহকাল ও পরকালে কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হবে। আসুন আমরা সবাই ওয়াদা করি মা বাবাকে কখনই অবহেলা করব না। 

নিচের ভিডিও টি দেখুনঃ

Monday, February 17, 2020

What betting sites are not on Gamstop?

What betting sites are not on Gamstop?

What betting sites are not on Gamstop? 

we can say that the UK gambling market is one of the most regulated markets in the world. The UK Board of Directors, the UK Gambling Commission, is in charge of all the wagering held under its jurisdiction. In the main international sports betting brands are not part betting websites, not on Gamstop aren’t licensed by the United Kingdom gambling operate in other worldwide jurisdictions like Curacao or Gibraltar. Gamstop also hits players who enjoy placing bets on their favorite sports teams and sports superstar players. But what's Gamstop? Today I discuss some of the betting sites that are not on Gamstop. You can following line by line with all articles. 

 

Features of non-UK bookmakers accepting players from the UK: 

It is normal for UK punters to stress whether Internet bookies not on Gamstop are trustworthy and reliable. Honestly, you'll never make certain if your chosen bookie is safe and secure once you join anonymous bookmakers. Therefore, we've provided you with the simplest options you've got immediately. Here are their basic features:

Regular and live bets: 

Internet betting sites not registered with Gamstop have all the essential features of Gamstop bookies and even own tools to limit some bets. Many of them also offer live streaming and live. Even bonuses and enhanced odds are on the menu also. 


As many events as on regular bookies: 

Sometimes bettors mistake bookmakers, not on Gamstop with bad and unreliable sportsbooks. This can’t be further from the truth really. In reality, these betting sites have as many events as regular bookies. Their market coverage is superb, and that they accept various bet options too. 


Accept punters from all over the world: 

Online betting operators that aren’t licensed by the UKGC are literally independent betting sites. Consequently, they don’t target British players. Instead, they specialize in punters from everywhere the planet, including Europe and North America. Their offer is meant to satisfy the requirements of international players. 
Welcome bonuses and promotions in foreign currencies: 

Bookies not part of Gamstop target international punters. So, their welcome bonuses and promos are offered in foreign currencies. There are many options are available really, including Euros, AUD, NZD, and CAD. 

Bad choice for highly addictive bettors: 

The main objective of Gamstop is to assist problem gamblers and stop them from accessing online bookmakers. With that in mind, gambling sites that don’t use Gamstop are a nasty choice for highly addictive bettors.  
Lack of popular deposit options: 
Betting sites are not blocked by Gamstop generally don’t feature any local payment methods. As a result, they have a lack of local UK payment methods. As a matter of fact, they also won’t feature UK payment options such as PayPal either. They do support, however, international billing methods. 


Not Licensed & Regulated by UKGC: 

The latest gambling and betting regulations within the UK demand that each one operator join Gamstop. These rules were introduced to guard British players who have a gambling problem. Therefore, online bookies outside Gamstop are non-UK betting sites by default. 

 

Types of sports that can be found on Non-Gamstop betting sites: 

Football: We know that Football is one of the best popular games in the world. But there are many football betting sites not on Gamstop. Betting sites, not on Gamstop offer great football betting opportunities with coverage of all major leagues, championships, and special events. 

Cricket: Cricket is another one of the best popular game all over the world. So, getting top-class cricket betting sites that aren’t on Gamstop was a top priority to us. You can see amazing cricket betting opportunities on betting sites, not on Gamstop. 

Basketball: Basketball is quite popular sports among bettors around the world. Basketball has the top three sports at every bookie, we understand the importance of high-quality basketball betting offers for you. You will get able to find attractive basketball betting opportunities at betting sites, not on Gamstop. 

Tennis: Tennis is an exciting sport to watch. Tennis game is not on Gamstop can keep you engaged throughout the year. You can get a lot of opportunities betting sites are not on Gamstop. 

Baseball: Baseball has another popular game all around the world. You have many of the options we recommend to our readers are baseball betting sites not signed up to Gamstop. Finding baseball betting options on sites outside UK jurisdiction is not hard at all. You get a lot of opportunities in-play baseball betting and lots of events to bet on.  
Rugby: Are you interested in Rugby Union or Rugby League betting? It does not really matter because rugby bookies not registered with Gamstop offer both. So, You will be able to do on both Non-Gamstop and Gamstop betting sites. 

eSports:  eSports are gaining popularity on betting sites with Non-Gamstop. Non-Gamstop sites feature the most popular games such as Counter-Strike: GO, Fortnite, and League of superstar Legends. 




Best online bookies not on GameStop for UK players: 

Even though outside the united kingdom Gambling Commission, these bookies are safe, trustworthy and have many betting options. As always, on NonStopCasino.org, we have the simplest Non-Gamstop sports betting companies for our readers: 

1. Betonline.ag: 

What betting sites are not on Gamstop?

Betonline.ag may be a US-based operator widely known for its' sportsbook and accepts players from the UK. The betting site has been started since 2004, offering bettors the amazing odds on golf, hockey, soccer, tennis, football, basketball, and baseball. you'll also choose the casino section and luxuriate in 3D Slots or other games from leading providers. 

Top Feature Betonline: 



  1. $55 Min. Deposit 
  2. 50% up to $1000 
  3. $50 Risk-Free Bet from Mobile 
  4. 50% up to $1000 
  5. Mentioned on ESPN & Forbes 
  6. Licence: Curacao e-Gaming 
  7. Sign Up Bonus: Up to $1000 

2.Tiger Gaming: 

What betting sites are not on Gamstop?

For quite 20 years, Tiger Gaming has been providing the foremost popular games and tournaments within the gambling industry. All poker enthusiasts and other players are guaranteed an exciting gaming experience across all devices. They are instant and payouts are made within 24 hours. 

Top Feature Tiger Gaming: 



  1. $55 Min. Deposit 
  2. $25 Risk-Free Bet 
  3. 100% up to $1000 
  4. 100% up to $1000 
  5. Casino + Bookie 
  6. License: Curacao e-Gaming 
  7. Sign Up Bonus: 100% Match Offer 

3.SportsBetting.ag: 

What betting sites are not on Gamstop?

SportsBetting may be a visually impressive bookie accepting UK players. you'll deposit or withdraw your funds through widely accepted options including debit and credit cards, electronic wallets, cryptocurrency, and lots of others. This brand offers unparalleled customer support services through different channels. 

Top Feature SportsBetting: 




  1. $55 Min. Deposit 
  2. 50% up to $1000 
  3. 48 Hours Payouts 
  4. 50% up to $1000 
  5. Appeared on AL.com 
  6. License: Panama 
  7. Sign Up Bonus: $25 Risk-Free Bet 

4.PH Bookie

PH is one among the underrated sites among all sportsbooks and casinos not on Gamstop. This site features an adult theme and comes with a variety of best games including eSports. Many bettors are interested in this website due to the high odds and generous promotions and free bets. They are payment options like BTC, Neosurf, Payeer, and Skrill. 

Top Feature Ph Bookie: 

  1. Casino for Adults 
  2. Naked Dealers 
  3. No credit card Payment 
  4. 100% Up to $500 
  5. Top Feature: Naked Croupiers 
  6. License: Curacao 
  7. Sign Up Bonus: 100% Up to $100 

 5.BetSwagger.com:  

What betting sites are not on Gamstop?



BetSwagger.com may be a USoft Gaming site with an honest record of delivering quality services since it had been established in 2017. BetSwagger.com controlled by the govt of Curacao and is protected by modern SSL encryption technology. Besides the regular casino games, the operator also offers live dealer options and a spread of sports bets. 

Top Feature BetSwagger: 

  1. Bookie & Casino 
  2. No credit card Payment 
  3. Fast Registration 
  4. 100% Up to $500 
  5. Live Bets 
  6. License: Curacao 
  7. Sign Up Bonus: 100% Up to $100 



Betting sites advantages: 

Online betting is simpler more fun and easily reachable, that is why you literally bet any time of the day and wherever you want, one the other hand, conventional betting styles like getting to a casino restricts your access to betting, as you'll only bet when the casino is open.

Easy To Get Started: 

You don’t need expert-level skills to be good at betting, the site you choose will explain all the basic rules and directions you’ll need to follow to place the bets safely. You can then make a deposit and begin betting directly. Many online betting sites would offer you a bonus on signup.  


Bet wherever you stay: 

If you've got an account with a web bookmaker, then you'll bet online from anywhere as long as you've got an online connection, whether you employ a PC, a laptop, phone or tablet. You can also bet when you are at the college, at work, on holiday, at the seaside or in the mountains or at the stadium watching your favorite team. 


Bet online at any time: 

You only need an online connection to put your bet, whether you would like to try to to it at 7 o'clock before you attend work or in the dark in the dark before you go to sleep. 


Live betting : 

All online bookmakers provide you with the choice to bet live 24 hours each day. At the simplest online bookmakers, you've got a minimum of one event that you simply can back in real-time. Moreover, you'll bet live from a mobile device once you are at the stadium at a football match or at the gym. 



Flexibility: 

If you would like to use a technique like Martingale or Fibonacci, it's very difficult to practice offline! If you're the sort of bettor that places daily 20-30 betting slips for one match, you surely don't want to play offline. 


Money management : 

Although initially glance you'll say it's not a crucial aspect, it is often very useful for bettors who spend an excessive amount of money. So at online bookmakers, ready to "> you'll set monthly deposit limits so you'll not be able to spend extra money than you originally planned. 


You Can Win Really Big: 

We are talking about millions here. The possibility and potential of winning pile is perhaps the most important reason why people choose betting within the first place. Every day we hear about people winning jackpots, and even if you’re not that lucky, you can still earn a decent amount from betting online on a daily basis. 


More Profitable Than Investment: 

While many people prefer stocks and other types of long term investment over betting because of their stability and gradual growth, betting can help you grow your money a lot faster if you like to take bigger risks. In this manner, betting is much more profitable than investment, that's if you retain winning. It’s a Good Source Of Fun: 
Sports betting can add a whole lot of excitement in the matches, once you place a bet, you start enjoying every bit of the match being played. It increases the importance of a game manifold even if it isn’t being played by your home team. In this matter, betting for fun is that the best thanks to the following. 




A Versatile Field: 

Gone ate the days when the types of betting were limited, now you can choose from a wide range of things to bet on. Sports betting itself has all the games supported on most of the simplest betting sites available. 
The abundance of betting sites may be a paradise for normal betters, they will choose whatever site they need and obtain straight into betting with no delays. 


Betting sites disadvantages: 

Betting isn’t all about winning and the positive stuff, it has some drawbacks too. While many of the risks are often avoided by following some precautions, there are some risks that are just an important a part of betting, and can’t be avoided under any circumstances. 

  1. First of all, you fall in Addiction  
  2. You don`t have to get enough time for family 
  3. Every people will doubt you and notice a sudden change in you which is not good 
  4. Gambling is bad quality making money.  
  5. You have to give a full-time job that`s why you would not be able to draw your attention to other things. 
  6. You lose a lot of sleep. That`s why your health will be more demotion.  
  7. you lose your money at a certain point because ultimately everyone wants to be a billionaire in order to do that You have to bet all. You will think like to go big or go home at a certain stage. 



Long Wait for Payments: 

Assuming that you are a winner for the betting in a sport. Although the dealers confirm that bettors are often received money by cash or TTR to account within every week. Actually the fact that it is always longer. Sometimes it can last to 2 weeks or maybe 1 month. 


You Can Lose Money Real Quick:  

This is probably the most reason why many of us are against betting. It is a high-risk game, and you can end up losing all your money pretty quickly if you fail to follow the basic precautions. 
To make betting safer, you can choose sports betting, as the outcome of a match is completely random, this increases your chances of winning considerably. You Won’t Always Win:  While it is definitely possible to win money in betting, no one can assure you that you’ll win every single bet, in fact, people lose more than they win, and this is the most reason why betting sites and casinos are in business. 


It Can Be Highly Addictive: 

Betting has no apparent effect on your physical health, but it can be even more addictive than drugs. Many people keep loosing their money in betting, and yet they can’t help with the temptation to play more, and this type of addictiveness can be fatal for your finances. 



More Losses: 

As we mentioned earlier, you’ll have less time to form your predictions and place a bet with live betting. This means that the majority of your bets are getting to be supported a hunch instead of in-depth research, which isn't a profitable long-term strategy. Moreover, with live betting, there's a much bigger chance that you’ll spend extra money because the offers are unique. You must be aware of your budget at all times, or you might end up losing more money than you can afford.


Conclusion:  

We have noticed that finding betting sites on Gamstop is a lot easier than finding their trustworthy counterparts, is not on Gamstop. There are two ways to make sure that a particular betting site is a member of the Gamstop online. 
The first method we find out that it is to look for the Gamstop logo. All betting sites on the Gamstop online feature a Gamstop logo on the homepage. It is usually located at the bottom corner of the page. 
The second method is to visit the official Gamstop website. There, We will be able to go through the list of all the participating betting sites. If you would like to back sites inside the network exclusively, this is often neat thanks to ensuring a particular betting site may be a part of it.