Sunday, January 20, 2019

একসাথে ২১ জন বিদেশীকে পার করতেন একজন বাঙালি নারী।

একসাথে ২১ জন বিদেশীকে পার করতেন একজন বাঙালি নারী।

অভাবের তাড়নায় আর ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে একসাথে ২১ জন বিদেশি পুরুষকে পার করলেন একজন বাঙালি নারী। আজকে উঠে এসেছে সেই ভাগ্য হারা নারীর করুণ ইতিহাস। অনেক যন্ত্রণা,যাতনা,নিপীড়ন,অত্যাচারের স্টিম রুলার তার উপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে বললেন তার নিজের ব্যক্তিগত ঘটে যাওয়া সেই নিদারুণ করুণ কাহিনীর কথা। কারণ একসাথে ২১ জন পুরুষকে পার করা সহজ কথা নয়। আসুন আমরা আজকে সংক্ষিপ্ত আকারে জানবো ঘটে যাওয়া সেই নারীর জীবনের এক করুণ মুহূর্ত।

নাম তার হাফিছন্নেছা হাসনা। যশোর জেলার চৌগাছা থানার ফুলসরা ইউনিয়নে তার বাড়ি। বছর পাঁচেক আগে অভাবের তাড়নায় স্বামীর সাথে ঢাকাতে কাজের সন্ধানে আসেন। তারপর তারা গাজীপুরের চৌরাস্তা সংলগ্ন একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতে শুরু করে। কিছুদিন যেতে না যেতেই তার স্বামী অন্য নারীদের সংস্পর্শে চলে যায়। হাসনা তার স্বামীকে অনেকবার হাতেনাতে ধরেছে এবং তাকে ভালো হওয়ার সুযোগ দিয়েছে। কিন্তু তাতে তেমন একটা লাভ হয়নি। তারপর হাসনাও বদলে গেল সেও প্রেম পরকীয়ার বেড়াজালে আটকা পড়ল। এভাবেই তার নতুন পথের সূচনা হল। গাজীপুরের এক দালালের সাথে হাসনার পরিচয় হয় সেই সূত্র ধরেই স্বামীর সংসার ত্যাগ করে বিদেশের মাটিতে পাড়ি জমান। তাকে পাঠানো হয় দক্ষিন আফ্রিকার তানজানিয়া শহরে।
নিচের ইমেজ বা ব্যানারে ক্লিক করুনঃ
 সেখানে অধিকাংশ নারী দেখতে কালো। তাই বাঙালি নারী হাসনার জন্য শহরটা হয়ে গেল বিপজ্জনক। তার সাথে বিভিন্ন বিদেশীয় মানুষ জোর করে ওই কাজ করত। কিন্তু তার আর কিছুই করার নেই কারণ সে বিদেশের মাটিতে বিক্রি হয়ে গেছে। সেখান থেকে ফিরে আসতে হলে তাকে অনেক কাঠ খড়ি পোড়াতে হবে। কিন্তু যাই হোক তার দিনগুলি চলছিলো ভালোই। টাকা আয়ের নেশা সাথে দেহের কামনা পূরণ তার দুটোই ভালোভাবে চলছিল। কিন্তু হঠাত সে পড়লো এক কড়াল গ্রাসে। সেদিন ছিল ১৫ ই সেপ্টেম্বর ২০১৮। একসাথে ২১ জন বিদেশি হাসনার বাসাতে যায় এবং টাকার বিনিময়ে ওই কাজ করতে বলে কিন্তু ২১ জনের দেখে সে ভয় পেয়ে যাই এবং করবে না বলে অস্বীকার করে। তাতে কোন লাভ হয় না সিরিয়াল দিয়ে ২১ জন তার সাথে জোর করে কাজটি করে। কিছুটা অসুস্থ ও দুর্বল হয়ে পড়ে কিন্তু তার এই যাত্রা আর থেমে থাকে না। বার বার বিদেশি হায়েনার কবলে পড়তে হয় তাকে। খুব কষ্ট করে ফিরে এসেছেন দেশের মাটিতে এখন সে অসহায় কারণ তার জীবন ও যৌবনের বারোটা বেজে গেছে। এখন সে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছে।তাই তার শারীরিক চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। এই জন্য তাকে নিয়ে আজকে আমার এই পোস্টটি লেখা। এই পোস্টটি শেয়ার করে মানুষের সচেতন করে তুলুন। আর হয়তবা আপনার শেয়ারের বিনিময়ে কোন সহৃদয়বানের সহযোগিতা মিলে যেতে পারে।

নিচের ব্যানারে বা ইমেজে ক্লিক করুন তাহলে আমরা উপকৃত হব। তাতে আপনার কোন ক্ষতি হবে না। আমাদের কিছু টাকা আসবে যার ফলে আমরা ওই নারীকে সাহায্য করতে পারবো।

নিচের ইমেজ বা ব্যানারে  অবশ্যই ক্লিক করুন।


Rea es:
শেয়ার করুন

Author:

আমি একজন অতি সামান্য মানুষ। পেশায় একজন লেখক,ব্লগার এবং ইউটিউবার। লেখালেখি করতে খুব ভালো লাগে। আমার এই সামান্য প্রয়াসের মাধ্যমে মানুষের কিছু শেখাতে পারা ও বিনোদন দেওয়ার মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পায়।

2 comments: