Saturday, January 25, 2020

স্কুল,কলেজে অথবা কর্মক্ষেত্রে হিন্দুদের সাথে বন্ধুত্ব করা যাবে কিনা?

স্কুল,কলেজে অথবা কর্মক্ষেত্রে হিন্দুদের সাথে বন্ধুত্ব করা যাবে কিনা?

স্কুল,কলেজে অথবা কর্মক্ষেত্রে হিন্দুদের সাথে বন্ধুত্ব করা যাবে কিনা?

আমরা সকলেই জানি বন্ধুত্বের প্রভাব অনস্বীকার্য। বন্ধুত্ব ও উদারতার নামে যেন নিজেদের দ্বীনদারি ক্ষতি না হয়, এজন্য বন্ধু নির্বাচনের ব্যাপারে রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন, الرجل على دين خليله فلينظر أحدكم من يخالل “মানুষ তার বন্ধু স্বভাবী হয়, তাই তাকে লক্ষ্য করা উচিৎ যে, সে কার সাথে বন্ধুত্ব করছে।” ( তিরমিযী, যুহুদ অধ্যায়, নং ২৪৮৪)

একারণেই ইসলামের বিধান হল, কোনো অমুসলিমের সাথে বন্ধুত্ব করা যাবে না। যেমন, আল্লাহ তাআলা বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَتَّخِذُوا الْيَهُودَ وَالنَّصَارَىٰ أَوْلِيَاءَ ۘ بَعْضُهُمْ أَوْلِيَاءُ بَعْضٍ ۚ وَمَنْ يَتَوَلَّهُمْ مِنْكُمْ فَإِنَّهُ مِنْهُمْ ۗ إِنَّ اللَّهَ لَا يَهْدِي الْقَوْمَ الظَّالِمِينَ

হে মুমিণগণ! তোমরা ইহুদী ও খ্রীষ্টানদেরকে বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করো না। তারা একে অপরের বন্ধু। তোমাদের মধ্যে যে তাদের সাথে বন্ধুত্ব করবে, সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত। আল্লাহ জালেমদেরকে পথ প্রদর্শন করেন না। (সূরা মায়েদা-৫১)

তবে শরীয়তের উক্ত সীমারেখায় থেকে তাদের সঙ্গে শালীন ও সুন্দর আচরণ করা, বিপদে তাদের সহযোগিতা করা, প্রতিবেশী হলে তাদের খোঁজ খবর নেয়া যাবে। এমর্মে আল্লাহ তাআলা বলেন,

 لَّا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ لَمْ يُقَاتِلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَلَمْ يُخْرِجُوكُم مِّن دِيَارِكُمْ أَن تَبَرُّوهُمْ وَتُقْسِطُوا إِلَيْهِمْ ۚ إِنَّ اللَّهَ يُحِبُّ الْمُقْسِطِينَ – إِنَّمَا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ قَاتَلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَأَخْرَجُوكُم مِّن دِيَارِكُمْ وَظَاهَرُوا عَلَىٰ إِخْرَاجِكُمْ أَن تَوَلَّوْهُمْ ۚ وَمَن يَتَوَلَّهُمْ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ

যারা দ্বীনের ব্যাপারে তোমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে নি এবং তোমাদেরকে তোমাদের ঘর-বাড়ি থেকে বহিষ্কার করে নি, তাদের সঙ্গে সদাচরণ করতে ও তাদের প্রতি ইনসাফ করতে আল্লাহ তোমাদেরকে নিষেধ করেন না। নিশ্চয়ই আল্লাহ ইনসাফকারীদেরকে ভালোবাসেন। আল্লাহ  তো তোমাদের তাদের সাথে বন্ধুত্ব করতে নিষেধ করেছেন, যারা দ্বীনের ব্যাপারে তোমাদের সাথে যুদ্ধ করেছে, তোমাদেরকে তোমাদের ঘর-বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে এবং তোমাদেরকে বের করার কাজে একে অন্যের সহযোগিতা করেছে। যারা তাদের সাথে বন্ধুত্ব করবে তারা জালিম। (সূরা মুমতাহিনা : ৮-৯)

তাই আমাদের সব সময় উচিত পরহেজগারি ও ইমানদার ব্যক্তিদের সাথে বন্ধুত্ব করা। তাহলে নিজের ঈমান মজবুত হয়। কথায় বলে সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস,অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ। কাজেই বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমাদের সবসময় সচেতন থাকতে হবে। আল্লাহ সবাইকে সঠিক পথে পরিচালিত করার তৌফিক দান করুন। "আমিন"

                                          নিচের ভিডিও টি দেখুনঃ 

Rea es:
শেয়ার করুন

Author:

আমি একজন অতি সামান্য মানুষ। পেশায় একজন লেখক,ব্লগার এবং ইউটিউবার। লেখালেখি করতে খুব ভালো লাগে। আমার এই সামান্য প্রয়াসের মাধ্যমে মানুষের কিছু শেখাতে পারা ও বিনোদন দেওয়ার মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পায়।

0 coment rios: